বগুড়ায় বিএনপি নেতা শাহীনকে নৃশংস ভাবে কুপিয়ে হত্যা

৪৯

স্টাফ রির্পোটার, বগুড়া

বগুড়ায় সদর থানা বিএনপির সাধারন সম্পাদক এ্যাডভোকেট মাহবুল আলম শাহীন(৫২) সন্ত্রাসীদের উপুর্যুপরি ছুরিকাঘাত ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে খুন হয়েছেন। তিনি পরিবহন ব্যবসার সাথে জড়িত ছিলেন। ঘটনাটি ঘটেছে রবিরার রাতে শহরের উপশহর এলাকায়। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, রবিবার রাত ১১টার দিকে বিএনপি নেতা এ্যাড. শাহীন শহরের উপশহর বাজার এলাকায় দাঁড়ানো অবস্থায় সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হন। এসময় ৮/৯জন সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা তার শরীর ও দু’পায়ে উপূর্যুপরি ভাবে ছুরিকাঘাত এবং ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করলে তিনি মাটিতে লুটিয়ে েেপড়ন। এ সময় তাকে মৃত ভেবে হামলাকারীরা  বীরদর্পে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। পরে স্থানীয়রা তার নরাচরা টের পেয়ে হাসপাতালে নেবার পথে তিনি মারা যান। এ বিষয়টি নিশ্চিত করে স্থানীয় ছিলিমপুর ফাঁড়ী পুলিশের এসআই আবদুল আজিজ মন্ডল এ্যাড শাহীনের মৃত্যু নিশ্চিত করে জানান, প্রথমে আহত অবস্থায় এ্যাড. শাহীনকে স্থানীয় স্বদেশ হাসপাতালে এবং সেখান থেকে তাকে বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।  সেখানেই কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করেন। অন্য দিকে উপশহর ফাঁড়ী পুলিশের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর শফিকুল ইসলাম জানান, বাড়ী ফেরার পথে উপশহর বাজার এলাকায় দাঁড়ানো অবস্থায় এ্যাড. শাহীন সশস্ত্র হামালার শিকার হন। এ সময় সন্ত্রাসীরা তার শরীর ও দু’পায়ে উপুর্যুপরিভাবে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে পালিযে যায়। পরে হাসপাতালে নেবার পথে তিনি মারা যান। কি কারণে এবং কারা এ হত্যাকান্ডের সাথে জরিত এ বিষয়টি ষ্পষ্ট করে জানাতে পারেননি এই পুলিশ অধিকর্তা। নিহতের লাশ বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হলে লাশ জানাযা শেষে দাফন করা হয়। এব্যাপারে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ বদিউজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান এরির্পোট লেখা পযর্ন্ত মামলা হয়নি, তবে প্রস্তুতি চলছে। অপর দিকে বগুড়া জেলা বিএনপির সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলাম ও সাধারন সম্পাদক জয়নাল আবেদীন চাঁন রাত ১২টার দিকে শজিমেক হাসপাতালে ছুটে যান। এ সময় বিএনপির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ভিপি সাইফুল হত্যাকান্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে হত্যার সাথে জড়িতদের দ্রæত গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।