বগুড়ার শেরপুরে বৈদ্যুতিক খুটি যেন মরণ ফাঁদ!

90

শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি:

বগুড়া শেরপুরে নর্দান ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেডের বৈদ্যুতিক খুঁটির গোড়া থেকে মাটি সরিয়ে রেখে মরণ ফাঁদে পরিণত করেছে। এভাবে মহাসড়কের পার্শ্বে খুঁটিগুলোর গোড়ায় মাটি না দিয়ে দাঁড়িয়ে রাখায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছে এলাকাসী ও মহাসড়কে চলাচল করছে বিভিন্ন যানবাহন ও পথচারী। যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

সরোজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কাঁঠালতোলা চাউলকল মালিক সমিতির অফিস সংলগ্ন সহ বেশ কয়েকটি বিদ্যুৎ খুঁটিগুলো দাঁড়িয়ে রেখে দিয়েছেন কিন্তু খুঁটির গোড়ায় মাটি না দিয়ে গর্তকরে রেখেছে। খুঁটির গোড়ায় মাটি না থাকায় যে কোন সময় খুঁটিগুলো দোকান, বাড়ি-গাড়ি বা পথচারীদের উপর পড়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এ যেন এক মৃত্যুর ফাঁদে পরিণত করেছে। এছাড়াও খন্দকারপাড়া এলাকায় শেরপুর হাটবাজার এলাকায় বৈদ্যুতিক খুটি হেলে পড়েছে। যে খুঁটি থেকে পুরো এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়েছে। যে কোন সময় ঘটতে পাড়ে বড় ধুরনের দুর্ঘটনা।

এলাকাবাসী জানান, দিনের পর দিন খুটি হেলে পরছে এবং এভাবে গর্ত করে রাখায় আমরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বসবাস ও পথচারী চলাফেরা করছে, হাইওয়ে রোড এই ব্যস্ত সড়কে দৈনিক হাজার হাজার মানুষ সহ যানবাহনেন যাতায়াত করছে। দীর্ঘদিন যাবত আমরা এলাকাবাসীসহ রাস্তার পথচারী মৃত্যুর ঝুকিতে চলছি। এই খুঁটির বিষয়ে স্থানীয় বিদ্যুৎ অফিসে বারবার মৌখিক অভিযোগ করার পরও কোন প্রতিকার হয়নি। নর্দান ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেডের কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব অবহেলা আর উধাসিনতায় যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

এ বিষয়ে নেসকো শেরপুর এর নির্বাহী প্রকৌশলী ফরিদুল হাসানের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, কেউ নাশকতা করার জন্য পরিকল্পিতভাবে খুঁটির গোড়া গর্ত করেছে। তিনি আরও বলেন, এ দায়িত্ব আমাদের না। একটি কোম্পানি ক্রয় করে পরিচালনা করছে তাদের দায়িত্ব।

অরিন/ মুক্তজমিন