ডিসিদের সার্বক্ষণিক কর্মস্থলে থাকার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

১৪

স্টাফ রির্পোটার, ঢাকা
জেলা প্রশাসকদের (ডিসি) সার্বক্ষণিক কর্মস্থলে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে পরিবারকেও সঙ্গে রাখতে বলেছেন তিনি। গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির সভায় (একনেক) প্রধানমন্ত্রী এ নির্দেশ দেন। শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে একনেকের এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রধানমন্ত্রীর এমন নির্দেশনার কারণ হিসেবে জেলা প্রশাসকদের অনেক সময় কর্মস্থলে না থাকার বিষয়টি সরকারের নজরে এসেছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। তারা বলেন, জেলা প্রশাসক হিসেবে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের অনেকের পরিবার বসবাস করে ঢাকায়। পরিবারকে সময় দিতে অনেক সময় তারা কর্মস্থল ছেড়ে যান। এতে প্রশাসনিক কার্যক্রম ব্যাহত হয়। একনেক সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এ বিষয়ে বলেন, প্রকল্প পরিচালকরা যেমন প্রকল্প এলাকায় থাকেন না তেমনি অন্যান্য সরকারি কর্মকর্তাও কর্মস্থলে থাকেন না। বিষয়টি সরকারের নজরে এসেছে। এ জন্য প্রধানমন্ত্রী সরকারি কর্মকর্তাদের সার্বক্ষণিক কর্মস্থলে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন। পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থা নিশ্চিত করেই সরকারি ভবন নির্মাণ করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেছেন, ভবন করার সময় খোলা জায়গা বা বারান্দা রাখতে হবে। যাতে মানুষ অগ্নিকান্ডের সময় আশ্রয় নিতে পারে। ভেন্টিলেশন (বায়ু চলাচলের জায়গা ) ব্যবস্থা রাখতে হবে। ভবনের আশেপাশের পুকুর বা জলাশয় নষ্ট করা যাবে না। সম্প্রতি অগ্নিকান্ডের ঘটনার প্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী এসব নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান পরিকল্পনামন্ত্রী। এম এ মান্নান আরও জানান, গরিব মানুষ, বর্গা চাষী এবং যারা অল্প জমির মালিক তাদের জমি উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য অধিগ্রহণ করা যাবে না। যদি একান্ত প্রয়োজনে অধিগ্রহণ করতেই হয়, তাহলে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে তিনগুণ ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। একই সঙ্গে পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করতে হবে। অধিগ্রহণ হওয়া জমিতে উন্নয়ন কাজ শুরু করার আগে ক্ষতিপূরণ এবং পুনর্বাসনের ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। মন্ত্রী আরও জানান, প্রয়োজনের অতিরিক্ত জমি অধিগ্রহণ করতে নিসেধ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। একই সঙ্গে ফসলি জমিতে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন না করতে বলেছেন। অন্যদিক নদীর নাব্যতা রক্ষা ও ভাঙ্গণ রোধ করতে দেশের নদীগুলো নিয়মিত ড্রেজিং (খনন) করারও নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।