চতুর্থ শিল্পবিপ্লবে আমাদের অবস্থান

আমরা জানতাম, দ্বিতীয় শিল্পবিপ্লবের পর তৃতীয় পেরিয়ে আমরা পা ফেলেছি চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের দরজায়। কিন্তু অধ্যাপক ক্লাউস শোয়াব বলছেন, দ্বিতীয় ও তৃতীয় বিপ্লবের সুফল এখন পর্যন্ত পুরোপুরি সব মানুষের কাছে পৌঁছায়নি।

0 9

আমরা জানতাম, দ্বিতীয় শিল্পবিপ্লবের পর তৃতীয় পেরিয়ে আমরা পা ফেলেছি চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের দরজায়। কিন্তু অধ্যাপক ক্লাউস শোয়াব বলছেন, দ্বিতীয় ও তৃতীয় বিপ্লবের সুফল এখন পর্যন্ত পুরোপুরি সব মানুষের কাছে পৌঁছায়নি। তাঁর হিসাবে দ্বিতীয় বিপ্লব এখনো বিশ্বের ১৭ শতাংশ মানুষের কাছে পৌঁছায়নি। কারণ, পৃথিবীর ১৩০ কোটি মানুষ এখনো বিদ্যুৎ পায়নি। তাঁর মতে, তৃতীয় বিপ্লবও এখন পর্যন্ত বিশ্বের মোট জনসংখ্যার অর্ধেকের কাছেই অধরা, কারণ ৪০০ কোটি মানুষ এখনো ইন্টারনেট–সুবিধা থেকে বঞ্চিত। অবশ্য এ কারণে সভ্যতার বিকাশে শিল্পবিপ্লবের অবদানকে খাটো করে দেখার কোনো উপায় নেই।

শোয়াব ভবিষ্যদ্বাণী করছেন যে চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের আগাম ফসল হিসেবে ২০২৫ সালের মধ্যে বিশ্বের ১০ শতাংশ মানুষের পরিধেয় বস্ত্রের সঙ্গে সংযুক্ত থাকবে ইন্টারনেট, ১০ শতাংশ মানুষের চশমার সঙ্গেও ইন্টারনেট সংযুক্ত থাকবে, পাওয়া যাবে মানুষের শরীরে স্থাপনযোগ্য মোবাইল ফোন, ৯০ শতাংশ মানুষ স্মার্টফোন ব্যবহার করবে, আমেরিকায় ১০ শতাংশ গাড়ি হবে চালকবিহীন, ৩০ শতাংশ করপোরেট প্রতিষ্ঠানের অডিট হবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন অডিটর দিয়ে, এমনকি কোম্পানির বোর্ডের এক পরিচালক হবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন রোবট, আমেরিকায় এসে যাবে রোবট ফার্মাসিস্ট। এ ধরনের আরও বহু অবিশ্বাস্য উদ্ভাবন ও আবিষ্কারের কথা আছে এ তালিকায়।